সোমবার, ০৮ অগাস্ট ২০২২ ইং         ০৮:০১ পূর্বাহ্ন
  • মেনু নির্বাচন করুন

    টাঙ্গাইলে বর্ধিত সভায় জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য কাশেমকে ছুরিকাঘাত


    প্রকাশিতঃ 08 Jun 2022 ইং
    ভিউ- 68
    শেয়ার করুনঃ




    টাংগাইল প্রতিনিধিঃ 


    টাঙ্গাইলে জেলা জাতীয় পার্টির বর্ধিত সভায় পার্টির অন্যতম প্রেসিডিয়াম মেম্বার ও টাঙ্গাইল-৫ (সদর) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য এবং জেলার আহ্বায়ক আলহাজ আবুল কাশেম লাঞ্ছিত ও ধারালো অস্ত্রাঘাতের শিকার হয়েছেন।


    বুধবার (৮ জুন) দুপুরে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে আয়োজিত জেলা জাতীয় পার্টির বর্ধিত সভাস্থলের প্রবেশ মুখে ঘটনাটি ঘটে। এ হামলার অভিযোগ উঠেছে জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম-আহ্বায়ক মোজাম্মেল হকের সমর্থক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে। পরে আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে টাঙ্গাইল শহরের ঢাকা ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।


    জানা গেছে, টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে বুধবার জাতীয় পার্টির বর্ধিত সভা আহ্বান করা হয়। ওই সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন- জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু। বিশিষ অতিথি ছিলেন প্রেসিডিয়াম মেম্বার ও অতিরিক্ত মহাসচিব (ঢাকা বিভাগ) লিয়াকত হোসেন খোকা, প্রেসিডিয়াম মেম্বার মো. জহিরুল ইসলাম জহির, চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা ও টাঙ্গাইল জেলা জাতীয় পার্টির সিনিয়র যুগ্ম-আহ্বায়ক খন্দকার নাজিম উদ্দিন।


    বর্ধিত সভায় সভাপতিত্ব করার কথা ছিল- পার্টির অন্যতম প্রেসিডিয়াম মেম্বার ও জেলার আহ্বায়ক আলহাজ আবুল কাশেম (সাবেক এমপি)।


    পার্টির জেলা শাখার আহ্বায়ক আবুল কাশেম সভাস্থলে প্রবেশ করার মুখে পার্টির কতিপয় উচ্ছৃঙ্খল নেতাকর্মী তার উপর হামলা করে। এতে তিনি আহত হলে শহরের ঢাকা ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়।


    প্রত্যক্ষদর্শী নেতাকর্মীদের অভিযোগ, সম্পূর্ণ রাজনৈতিক প্রতিহিংসা বসত: পার্টির অন্যতম প্রেসিডিয়ার মেম্বার ও জেলার আহ্বায়ক আহ্বায়ক আলহাজ আবুল কাশেমের উপর হামলা চালানো হয়েছে।


    কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের সামনে জাতীয় পার্টির যুগ্ম-আহ্বায়ক মোজাম্মেল হকের অবস্থান ও পেশি শক্তির প্রকাশ করতে তার সমর্থক নেতাকর্মীরা পরিকল্পিতভাবে ঘটনাটি ঘটিয়েছে। হামলা তীব্র নিন্দা ও জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন তারা।


    জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম-আহ্বায়ক মোজাম্মেল হক জানান, তিনিও এ ঘটনায় মর্মাহত হয়েছেন। ঘটনাটি যারা ঘটিয়েছে তারা তার সমর্থক বা দলের নেতাকর্মী নয়- হতে পারে বহিরাগত। তার সমর্থক নেতাকর্মীদের গায়ে তার ছবি ও নামসহ গেঞ্জি ছিল। ফুটেজ দেখলে বিষয়টি স্পষ্ট হওয়ার কথা।


    জেলা জাতীয় পার্টির সিনিয়র যুগ্ম-আহ্বায়ক খন্দকার নাজিম উদ্দিন জানান, হামলার ঘটনাটি সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উচ্চাভিলাসী চিন্তা থেকে ঘটানো হয়েছে। হামলাকারীরা ছবিসহ গেঞ্জি পড়া ছিল। তারা পার্টির নেতাকর্মী নয়। তারা সভাস্থলে প্রবেশের সময় তাকেও ধাক্কা মেরেছিল।


    চিকিৎসারত পার্টির অন্যতম প্রেসিডিয়াম মেম্বার জেলার আহ্বায়ক আলহাজ আবুল কাশেম জানান, টাঙ্গাইল-৫ (সদর) সংসদীয় আসনের প্রার্থী হতে জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম-আহ্বায়ক মোজাম্মেল হক ঘটনাটি ঘটিয়েছেন। হামলার ঘটনাটি সম্পূর্ণ উদ্দেশ্য প্রণোদিত এবং তিনি ক্ষমতাবান সেটি প্রচার করতেই এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে।


    এ বিষয়ে জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু জানান, তার সামনেই হামলার ঘটনাটি ঘটেছে। ঘটনাটি খুবই খারাপ হয়েছে। এ ব্যাপারে তদন্ত কমিটি গঠন সহ সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


    তিনি আরও জানান, পার্টির মাঝে যারা এই সমস্ত গুন্ডামী-মাস্তানি করবেন তাদের জায়গা পার্টিতে নেই। তার সামনে ঘটনাটি ঘটানো কোন শুভনীয় কাজ হয়নি। যারা ঘটনাটি ঘটিয়েছেন তাদের ভবিষ্যত ভালো হবে না। কেননা জাতীয় পার্টি কখনো অন্যায়ের সাথে আপোষ করে না।


    আপনার মন্তব্য লিখুন
    © 2022 muktir71news.com All Right Reserved.